গর্জে উঠুক সমাজ

আর মোমবাতি প্রজ্বলন নয় চাই কঠোর প্রতিবাদ। তার আগে চাই সমাজের পুরুষদের মানসিক চরিত্র গঠনের শিক্ষা। এমন শিক্ষা যা নারীদের সন্মান করতে শেখাবে। নারীর দিকে কামনার দৃষ্টি নিবদ্ধ করার মানসিকতাকে ভোঁতা করে দেবে।

সেই মহাভারতের সময় থেকেই নারীদের অসম্মানের নিদর্শন পাওয়া যায়। কৌরবদের হাতে দ্রৌপদীর সম্মানহানির কাহিনী আমরা পড়েছি। আজ ও রোজ আমরা সংবাদ পত্রে পড়ছি নারীরা পুরুষদের দ্বারা লান্ঞ্ছিত, অসম্মানিত হচ্ছে।

NCRB এর রিপোর্ট অনুযায়ী 2018 সালে আমাদের দেশে মোট ধর্ষণের কেস ৩৩,৩৫৬। আরো বিস্ময়ের ও ভয়ঙ্কর দিক প্রতি ১৬ মিনিটে একটি করে মেয়ে ধর্ষিত হচ্ছে। এতে এটাই প্রমাণ পাওয়া যায় আমাদের দেশে মেয়েরা কতটা নিরাপত্তা হীনতার মধ্যে বেঁচে আছে।

আমাদের দেশে সমাজ বরাবরই মেয়েদের থেকে ছেলেদের মাথায় করে রাখে। কেন বলছি? বলবোনা কেন? ছেলে জন্ম হলে বৃহন্নলারা দর হাঁকে। মেয়েদের জন্মের সময়ই তাদের মূল্য নির্ধারণ করা হয়ে যায়। এখনো অনেক কন্যা ভ্রূণ হত্যা হয়।কন্যা জন্মালে তাকে হত্যা করতেও হাত কাঁপেনা।আবার এটা বলতেও দ্বিধা নেই কোন মেয়ে যদি পথে চলতে গিয়ে কোন পুরুষ এর বিকৃত রুচির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে তখন তার মা দিদি পিসিরাই বলবে, ” কি দরকার ছিল কিছু বলার, চুপচাপ সরে গেলেই তো হতো”। অনেক ক্ষেত্রে মেয়েরাই মেয়েদের কাছ থেকে ন্যুনতম সহযোগিতা, সহানুভূতি পায়না।

কোন মেয়েকে মানুষ করতে যেমন আমরা প্রথমেই ভাবি কোন ভাল স্কুলে দেব। নাচ গান শেখাব,হাতের কাজে, ঘরে বাইরে চলার ক্ষেত্রে পারদর্শী করে তুলবো। কিন্তু আমাদের এখন প্রথম ভাবনা হবে মেয়েদের আত্মরক্ষার পাঠ প্রদান বিষয়ে। সর্বোপরি প্রতিটি ছেলেকে নারীদের সন্মান প্রদানের শিক্ষার দিকে জোর দিতে হবে। ছেলেদের শৈশবকাল থেকেই সুস্হ মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে। নারী পুরুষ সমান এই শিক্ষা তাদের দিতে হবে। প্রতিটি বিদ্যালয়ে মেয়েদের যেমন আত্মরক্ষার পাঠ দিতে হবে তেমন ছেলেরা যাতে সুস্থ মানসিকতা গঠনের শিক্ষা পায় সেদিকে জোর দিতে হবে, যত্নশীল হতে হবে।

এসবের পরেও কোন নারীর সাথে অসন্মানজনক ঘটনা ঘটলে প্রতিবাদ করতেই হবে, গর্জে উঠতে হবে।না হলে দেশে আরো একজন প্রিয়াঙ্কা,আরো একজন সুজেট, আরো একজন মনীষা লাঞ্ছিত হতেই থাকবে। দ্রৌপদীর সন্মান রক্ষা করতে যেমন শ্রী কৃষ্ণ অবতীর্ণ হয়েছিলেন তেমন এই যুগে আশা না করে নিজেকেই লড়াই করার শক্তিতে বলীয়ান করতে হবে।

বি.দ্র . এখানে সব পুরুষদের কথা বলা হয়নি। বিকৃত রুচির পুরুষদের কথা বলা হয়েছে।

*****************

ছবি সৌজন্যে- গুগল্।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s